জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধু সহ-সকল শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন মেয়র ওমর ফারুক খান

41

নিজস্ব প্রতিবেদক->>>

আজ ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। তাই এই শোক দিবসে,দাগনভূইয়ার বুকে অসহায় নিপিডিত হতদরিদ্র মানুষের শেষ আশ্রায়স্খল দাগনভূইয়া পৌর মেয়র ওমর ফারুক খান।
১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর সহ তার সহ-পরিবারের সকল শহীদের প্রতি বিনম্ম শ্রদ্ধা ও তার শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছেন মেয়র ওমর ফারুক খান।
স্বাধীনতার স্থপতি,জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকী। জাতি-ধর্ম-বর্ণনির্বিশেষে বাঙালি জাতি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে পালন করবে দিনটি।
১৯৭৫ সালের শোকাবহ এই কালো দিবসে ভোররাতে সেনাবাহিনীর কিছুসংখ্যক বিপথগামী সদস্য ধানমন্ডির বাসভবনে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। ঘাতকেরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল।
পৃথিবীর এই জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর অনুজ শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তাঁর ছেলে আরিফ, মেয়ে বেবি ও সুকান্তবাবু, বঙ্গবন্ধুর ভাগনে যুবনেতা ও সাংবাদিক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি, তাঁর অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি এবং আবদুল নাঈম খান রিন্টু, কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও ঘনিষ্ঠজন।
এ সময় বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বিদেশে থাকায় প্রাণে রক্ষা পান।জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে,বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগষ্টের সকল শহীদের রুহের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।
সর্বোপরি দাগনভূইয়া বাসীর নিবেদিত প্রান মেয়র ওমর ফারুক খান বলেন, ‘যতদিন রবে পদ্মা মেঘনা গৌরী যমুনা বহমান। ততদিন রবে কীর্তি তোমার প্রানের প্রিয় শেখ মুজিবুর রহমান।